জুম্মা বারের কিছু জরুরী ফজিলত

শুক্রবার, ১০ আগস্ট ২০১৮ | ১২:০৬ অপরাহ্ণ |

জুম্মা বারের কিছু জরুরী ফজিলত

আলহামদুলিল্লাহ …। আরেকটি জুম্মাবার এসে পড়েছে। সকল দিনের শ্রেষ্ঠ দিনটি আবার ঘুরে এসছে । আপনি কি এই দিনটির অপেক্ষায় ছিলেন না ? এই দিনটিকে বৃথা নষ্ট হতে দেবেন না, কারণ অনেক বরকত ও ফজিলত নিহিত রয়েছে আজকের দিনটিতে। আমরা যারা মুসলমান তারা সকলে জুম্মাবারকে এটি ফজিলত পূর্ন দিন বলে জানি। কিন্তু অনেকে হয়ত জানেনা কেন এ দিনটি ফজিলত পুর্ন। এক বার দেখা যাক কি কি কারনে অন্যদিনের চেয়ে এই দিন অধিক মর্যাদাবান ।
জুমাবার মুসলিম উম্মাহর সাপ্তাহিক উৎসব। প্রায় মুসলিম রাষ্ট্রে এ দিনে পালিত হয় সাপ্তাহিক ছুটি। ছুটির আমেজ ও ধর্মীয় ভাব-গাম্ভীর্য দুটি মিলে এই দিনের প্রতি মুসলমানদের হৃদয়ে রয়েছে আকর্ষণ ও গভীর টান। এই দিনটি মুসলমানদের সমাবেশের দিন। —

নিম্নলিখিতি সুন্নাত গুলো আদায় করতে সচেষ্ট হন : !!

১) ফজরের সালাত জামাতে আদায় করুন (আল-বায়হাকী , সহী আল-আলবানি, ১১১৯)

২) সালাত আল-জুম্মার পূর্বের এবং পরের করণীয়ঃ
➲ জুম্মার দিন গোসল করা (বুখারী এবং মুসলিম : # ১৯৫১ এবং # ৯৭৭)
➲ জুম্মার সালাতে শীঘ্র উপস্থিত হওয়া (বুখারী এবং মুসলিম : # ৯২৯ এবং ১৯৬৪)
➲ পায়ে হেঁটে মসজিদে গমন করা (আল-তিরমিজি, ৪৯৬)
➲ মনোযোগ সহকারে জুম্মার খুৎবা শোনা (আল-বুখারী ৯৩৪ এবং মুসলিম ৮৫১)

৩) জুম্মার দিন আপনার দুয়া কবুল হবার সেই মুহূর্তটির অনুসন্ধান করুন –
আবু হুরায়রা(রাঃ) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ(সাঃ) একদা জুম’আর দিন সম্বন্ধে আলোচনা ক’রে বললেন, “ওতে এমন একটি মুহূর্ত আছে, কোন মুসলিম ব্যক্তি যদি ঐ মুহূর্তে দাঁড়িয়ে নামায অবস্থায় আল্লহর কাছে কিছু প্রার্থনা করে, তাহলে আল্লাহ তাকে দান ক’রে থাকেন।” এ কথা বলে তিনি স্বীয় হাত দ্বারা ইঙ্গিত করলেন, সে মুহূর্তটি খুবই সংক্ষিপ্ত।(সহীহ বুখারী – ৯৩৫,৫২৯৫,৬৪০০; সহীহ মুসলিম – ৮৫২)

আবু হুরায়রা(রাঃ) বলেন, আমি আব্দুল্লাহ ইবনু সালামের সাথে সাক্ষাত করে তাঁকে এ হাদীস প্রসঙ্গে জানালাম। তিনি বলেন আমি সে সময়টি জানি। আমি বললাম, তাহলে আমাকেও বলে দিন, এ ব্যাপারে কৃপণতা করবেন না। তিনি বললেন, এ সময়টি আসরের পর হতে সূর্য অস্ত যাওয়া পর্যন্ত। আমি বললাম, তা কি করে আসরের পর হতে পারে? অথচ রাসূলুল্লাহ(সাঃ) বলেছেন, বান্দা নামাযরত অবস্থায় এই মুহূর্তটি পেয়ে…। অথচ আপনি যে সময়ের কথা বলেছেন, তখন তো নামায আদায় করা হয় না।আব্দুল্লাহ ইবনু সালাম(রাঃ)বলেন, রাসূলুল্লাহ(সাঃ) কি বলেননি ‘যে ব্যক্তি নামাযের অপেক্ষায় বসে থাকে প্রকারান্তে সে নামাযের মধ্যেই থাকে? আমি বললাম, হ্যাঁ। তিনি বললেন সেটাই এ সময়। (সহীহ আত তিরমীযী – ৪৯১; ইবনু মাযাহ – ১১৩৯; মুয়াত্তা মালিক,৭ম পরিচ্ছেদ; নাসায়ী – ১৪৩৩)

৪) সূরা কাহাফ তিলাওয়াত (আল-হাকিম, ২/৩৯৯; আল-বায়হাকী, ৩/২৪৯)

৫) আমাদের নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উপর দুরদ পাঠ (ইবনে মাজাহ # ১০৮৫ , আবু দাউদ , # ১০৪৭)

৬. “হে মুমিনগণ, জুমআর দিনে যখন নামাযের আযান দেয়া হয়, তখন তোমরা আল্লাহর স্মরণের পানে ত্বরা কর এবং বেচাকেনা বন্ধ কর। এটা তোমাদের জন্যে উত্তম যদি তোমরা বুঝ।” [সূরা জুমু’আহ ৯]

৭. যে মুসলিম জুমুআর দিন অথবা রাতে মারা যায়,
আল্লাহ তাকে কবরের ফিতনা থেকে বাঁচান।”

jummabar৮. •► হযরত আবু হুরাইরা (রাঃ) কর্তৃক বর্ণিত, আল্লাহর রসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেন, •►
“যে ব্যক্তি জুমুআর দিন নাপাকীর গোসলের মত গোসল করল। অতঃপর প্রথম সময়ে (মসজিদে গিয়ে) উপস্থিত হল, সে যেন এক উষ্ট্রী কুরবানী করল। যে ব্যক্তি দ্বিতীয় সময়ে উপস্থিত হল, সে যেন একটি গাভী কুরবানী করল। যে ব্যক্তি তৃতীয় সময়ে পৌঁছল, সে যেন একটি শিং-বিশিষ্ট মেষ কুরবানী করল। যে ব্যক্তি চতুর্থ সময়ে পৌঁছল, সে যেন একটি মুরগী দান করল। আর যে ব্যক্তি পঞ্চম সময়ে পৌঁছল, সে যেন একটি ডিম দান করল। অতঃপর যখন ইমাম (খুতবাদানের জন্য) বের হয়ে যান (মিম্বরে চড়েন), তখন ফিরিশতাগণ (হাজীরা খাতা গুটিয়ে) যিকর (খুতবা) শুনতে উপস্থিত হন।” •(সহীহ বুখারী ৮৮১, সহীহ মুসলিম ৮৫০, মুওয়াত্তা মালেক, সুনানু আবূ দাঊদ, ইবনু মাজাহ, সুনানু নাসাঈ)•

৯.•► হযরত আবূ হুরাইরা (রাঃ) হতে বর্ণি, মহানবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেন, “জুমুআর দিন ইমামের খুতবা দানকালে কথা বললে তুমি অনর্থ কর্ম করলে এবং (জুমুআহ) বাতিল করলে।” (ইবনে খুযাইমাহ, সহীহ, সহীহ তারগীব ৭১৬নং)

১০.•► উক্ত হযরত আবূ হুরাইরা (রাঃ) কর্তৃক বর্ণিত, মহানবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেন, “জুমুআর দিন ইমামের খুতবা দেওয়ার সময় যদি তুমি তোমার (কথা বলছে এমন) সঙ্গীকে ‘চুপ কর’ বল তাহলে তুমিও অসার কর্ম করবে।” (সহীহুল বুখারী ৯৩৪, সহীহ মুসলিম ৮৫১নং, আবূ দাঊদ, তিরমিযী, নাসাঈ ও ইবনে মাজাহ), ইবনে খুযাইমাহ, সহীহ)

১১. •► ‘অসার বা অনর্থক কর্ম করবে’ এর একাধিক ব্যাখ্যা করা হয়েছে; যেমন, তুমি জুমুআর সওয়াব থেকে বঞ্চিত হবে। অথবা তোমারও কথা বলা হবে। অথবা তুমিও ভুল করবে। অথবা তোমার জুমুআহ বাতিল হয়ে যাবে। অথবা তোমার জুমুআহ যোহরে পরিণত হয়ে যাবে ইত্যাদি। তবে বিশেষজ্ঞ উলামাদের নিকট শেষোক্ত ব্যাখ্যাই নির্ভরযোগ্য। কারণ, এরূপ ব্যাখ্যা নিন্মেক্ত হাদীসে বর্ণিত হয়েছে।

১২. •► আব্দুল্লাহ বিন আমর বিন আস (রাঃ) কর্তৃক বর্ণিত, আল্লাহর রসূল (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেন, “যে ব্যক্তি জুমুআর দিন গোসল করল, তার স্ত্রীর সুগন্ধি (আতর) থাকলে তা ব্যবহার করল, উত্তম লেবাস পরিধান করল, অতঃপর (মসজিদে এসে) লোকেদের কাতার চিরে (আগে অতিক্রম) করল না এবং ইমামের উপদেশ দানকালে কোন বাজে কর্ম করল না, সে ব্যক্তির জন্য তা উভয় জুমুআর মধ্যবর্তী কৃত পাপের কাফফারা হয়ে যাবে। আর যে ব্যক্তি অনর্থক কর্ম করল এবং লোকেদের কাতার চিরে সামনে অতিক্রম করল সে ব্যক্তির জুমুআহ যোহরে পরিণত হয়ে যাবে।” (সুনানু আবূ দাঊদ, ইবনে খুযাইমাহ, সহীহ তারগীব ৭২০নং)

জুম্মা সম্পর্কিত 2টি হাদীস:

যে ব্যাক্তি আদব রক্ষা করে জুম’আর সালাত আদায় করে তার প্রতিটি পদক্ষেপের বিনিময়ে তার জন্য পুরো এক বছরের রোজা পালন এবং রাত জেগে তাহাজ্জুদ পড়ার সমান সওয়াব লিখা হয়। আউস বিন আউস আস সাকাফী (রাঃ) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন: “জুমা’আর দিন যে ব্যাক্তি গোসল করায় (অর্থাৎ সহবাস করে, ফলে স্ত্রী ফরজ গোসল করে এবং) নিজেও ফরজ গোসল করে, পূর্বাহ্ণে মসজিদে আগমন করে এবং নিজেও প্রথম ভাগে মসজিদে গমন করে, পায়ে হেঁটে মসজিদে যায় (অর্থাৎ কোন কিছুতে আরোহণ করে নয়), ইমামের কাছাকাছি গিয়ে বসে, মনোযোগ দিয়ে খুৎবা শোনে, কোন কিছু নিয়ে খেল তামাশা করে না; সে ব্যাক্তির প্রতিটি পদক্ষেপের জন্য রয়েছে বছরব্যাপী রোজা পালন ও সারা বছর রাত জেগে ইবাদত করার সমতুল্য সওয়াব।” (মুসনাদে আহমাদঃ ৬৯৫৪,
১৬২১৮)
আপনারা খেয়াল করলে দেখবেন আমরা যখন মসজিদে যাই তখন সেখানে তিন ধরনের মানুষ দেখতে পাই, যা হুজুর (সা:) এর নিম্নোক্ত দিস দ্বারা প্রমাণিত হয়: রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “জুম’আর সালাতে তিন ধরনের লোক হাজির হয়।

(ক) এক ধরনের লোক আছে যারা মসজিদে প্রবেশের পর তামাশা করে, তারা বিনিময়ে তামাশা ছাড়া কিছুই পাবে না। (খ) দ্বিতীয় আরেক ধরনের লোক আছে যারা জুম’আয় হাজির হয় সেখানে দু’আ নাজাত করে, ফলে আল্লাহ যাকে চান তাকে কিছু দেন আর যাকে ইচ্ছা দেন না। (গ) তৃতীয় প্রকার লোক হল যারা জুম’আয় হাজির হয়, চুপচাপ থাকে, মনোযোগ দিয়ে খুৎবা শোনে, কারও ঘাড় ডিঙ্গিয়ে সামনে আগায় না, কাউকে কষ্ট দেয় না, তার দুই জুম’আর মধ্যবর্তী ৭ দিন সহ আরও তিনদিন যোগ করে মোট দশ দিনের গুনাহ খাতা আল্লাহ তায়ালা মাফ করে দেন।” (আবু দাউদঃ ১১১৩)

২০১১-২০১৬ | বিবিসিজার্নাল.ডটকম'র কোনো সংবাদ বা ছবি অন্য কোথাও প্রকাশ করবেন না

Development by: webnewsdesign.com